March 3, 2024, 8:51 am

আ.লীগের প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন চাওয়ার কোনো মূল্য নেই: আবদুল মঈন খান

Reporter Name
  • আপডেট Friday, August 25, 2023
  • 52 জন দেখেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা :: আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন চাওয়ার কোনো মূল্য নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান। তিনি বলেন, তাদের চাওয়া অত্যন্ত চমৎকার। কিন্তু আওয়ামী লীগের কথা ও কাজের মিল না থাকায় এ কথার কোনো মূল্য নেই। আজ শুক্রবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন মঈন খান।

বৃহস্পতিবার বিকেলে গুলশানে বাংলাদেশে নিযুক্ত জাতিসংঘের সমন্বয়কারী গোয়েন লুইসের সঙ্গে বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন চায় জাতিসংঘ। আর আওয়ামী লীগ চায় প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন। আওয়ামী লীগ চায় নির্বাচনে বিএনপির মতো বড় রাজনৈতিক দল অংশ নিক। 

ওবায়দুল কাদেরের এই বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে আবদুল মঈন খান বলেন, ‘অত্যন্ত চমৎকার কথা। কিন্তু এই কথার কোনো মূল্য নেই। আওয়ামী লীগ ব্যর্থ হয়েছে এ কথা প্রমাণ করতে যে, তাদের কথা ও কাজে মিল আছে।’ 

বিগত দিনের তিক্ত অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিতে গিয়ে বিএনপির এই শীর্ষ নেতা বলেন, ‘অত্যন্ত চমৎকার কথা। কিন্তু কথা আর কাজে যদি মিল না থাকে, সেই কথার কোনো মূল্য থাকে না। ২০১৮ সালে আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিরোধী দল এই সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসেছিলাম। সেখানে বলা হয়েছিল আপনারা নির্বাচনে আসুন, আমরা একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করে দেখিয়ে দেব। আমরা সে কথা বিশ্বাস করেছিলাম, নির্বাচনে এসেছিলাম। পরবর্তী সময়ে সেই নির্বাচনের প্রচারণার প্রথম দিনে আমার ওপরে, আমার মিছিলের ওপর আক্রমণ করা হয়েছিল। সারা বাংলাদেশে আক্রমণ করা হয়েছিল। সেই আক্রমণ নির্বাচনের আগের দিন পর্যন্ত চলেছিল। পরবর্তীতে এমন একটি নির্বাচন হয়েছে, যেখানে বাংলাদেশের কোনো মানুষ ভোট দেয়নি। এখানে দিনের ভোট রাতে হয়েছে।’ 

মঈন খান আরও বলেন, বিএনপি বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে, গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, মানবাধিকারে বিশ্বাস করে। বিএনপি সুশাসনে বিশ্বাস করে এবং এই দেশের মানুষের ভোটাধিকারে বিশ্বাস করে। ‘আজকে অলিখিত বাকশাল কায়েম করে জনগণের ভোটের অধিকার হরণ করা হয়েছে। আমরা যে সংগ্রামে আছি, যে কর্মসূচিতে আছি, সেই কর্মসূচির মাধ্যমে পুনরায় বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষের কাছে গণতন্ত্র ফিরিয়ে দেব।’

সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সম্পর্কিত আরও খবর